স্যোশাল মিডিয়ায় মিথ্যা গুজবের কড়া জবাব দিলেন নায়ক ফারুক

বেশ কদিন ধরেই স্যোশাল মিডিয়াতে বিরূপ সমালোচনা ও গুজবের ডালপালা বিস্তার করে চলছিল ঢাকাই সিনামার মিয়াভাই খ্যাত নায়ক আলহাজ্ব আকবর হোসেন পাঠান(নায়ক ফারুক)কে ঘিরে। ‘ইসলাম প্রতিষ্ঠার জন্য মুক্তিযুদ্ধ করিনি’ এমন এক কথিত বক্তব্য ছিলো সমালোচনার কেন্দবিন্দুতে। এমন কথিত মন্তব্যকে ঘিরেই তাকে নিয়ে ইসলাম অবমাননার অভিযোগ তোলা হচ্ছিলো।

পুরো বিষয়টি নিয়ে একটি ভিডিও বার্তার মধ্যমে জবাব দিয়েছেন তিনি।

ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, বলেন, ‘আমার প্রিয় ভাই ও বন্ধুগণ আজকে বুকের ভেতরে দুঃখ নিয়ে কিছু কথা বলতে চাই। সারাজীবন মানুষের কথা বলেছি। আমাকে নিয়ে যে ধরনের কথা বার্তা ফেসবুকে বলা হয় আমি আসলেই মর্মাহত। মানুষ এত নিচে নামতে পারে আমি ভাবতেও পারিনি। ইসলাম নিয়ে আমি মন্দ কথা বলবো? আমি নিজে একজন হাজী। আমার নাম হাজী আকবর হোসেন পাঠান ফারুক। আমার স্ত্রী ফারহানা, মেয়ে ফারিহা তাবাসসুম, ছেলে রওশন হোসেন পাঠান তারা সবাই হাজী। একটা মসজিদ আছে আমার নিজের, এটা আমার বড় দাদা দিয়ে গেছেন। সেই মসজিদের জায়গা হলো ৩০ বিঘা। মসজিদের যে অঞ্চল টুকুতে মানুষ নামাজ পড়ে শুধু সেটাই সাড়ে ৫ বিঘা। ওই মসজিদের মুতাওয়াল্লি আমি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি একজন মুসলিম। বলা হয় ধর্ম যার যার, ওই ধর্ম নিয়ে (মন্দ) কথা বলার কোনো অধিকার কারো নেই। আমরা যুদ্ধ করেছি এই দেশ স্বাধীন করার জন্য। পরাধীনতার যে শিকল মানুষের গলায় দিয়ে দেওয়া হয়েছিল সেটাকে ভেঙে চুরে ৩০ লক্ষ মানুষের বুকের রক্ত দিয়ে বঙ্গবন্ধুর ডাকে এই দেশ স্বাধীন করা হয়েছে। আপনাদের কাছে অনুরোধ জানাই, কাউকে হেউ প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করবেন না। এতে কোনো ভালো ফল পাবেন না। সমস্ত কিছু নির্ভর করে সত্য ও সুন্দরের উপর। আমি তেমন কোনো কথাই বলিনি যেটা কোনো ধর্মকে আঘাত করতে পারে। আমি যদি বলে থাকি উপরে রাব্বুল আলামীন সাক্ষী আছেন। বিশ্বাস করুন আমি এই দেশের মাটিকে ভালোবাসি। সব ধরনের মানুষকে ভালোবাসি। কে হিন্দু, কে মুসলমানম কে খ্রিষ্টান, কে বৌদ্ধ আমি এগুলো ফিল করিনা, কারণ আমি একজন মানুষ।’